কফি পানে যে পাঁচ উপকার পাবেন

সারাদিনের ক্লান্তি দূর করতে এককাপ কফির জুড়ি নেই। শুধু কী তাই? অফিসে কাজের ফাঁকে, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে, প্রিয়জনের সঙ্গে সময় কাটানো ছাড়াও সারাদিন কাজের শেষে বাড়ি ফেরার পর সবকিছুর মাঝে একটুখানি প্রশান্তি যেন এককাপ কফি। কেননা শরীরে প্রাকৃতিক ওষুধ হিসেবে কাজ করে এই কফি। একটি গবেষণা থেকে জানা যায়, নিয়মিত কফি পান করলে নানা ধরনের রোগবালাই থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। জেনে নিন কফি পানে যে পাঁচ উপকার পাবেন:

শক্তি যোগায়: শারীরিক অবসাদ দূর করার জন্য মোক্ষম পানীয় কফি। শরীর মন চাঙ্গা করতে এক কাপ গরম কফির বিকল্প নেই। কফিতে থাকা উপাদানের নাম ক্যাফেইন। ক্যাফেইন শরীরে উদ্যম ও উৎসাহ তৈরি করে। তাই খেলাধুলা কিংবা কঠিন কাজ করার আগে কফি খেলে উপকার পাবেন।

ওজন কমে: ওজন কমাতে নির্ভর করতে পারেন কফির ওপর। কফি ফ্যাট কমাতে সাহায্য করে এবং কর্মক্ষমতা বাড়ায়। সকালে জিম শুরু করার আগে এক কাপ ব্ল্যাক কফি খেলে শরীরের ক্যালরি ক্ষয় হয়। ফলে ওজন কমে। কর্মক্ষমতা বাড়ে: কফি কর্মক্ষমতা বাড়ায়। ক্যাফেইন রক্তের এপিনেফ্রিন বাড়িয়ে তোলে। ফলে কাজে উদ্যম বেড়ে যায়।

ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমে: কফি ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায় ২৩ থেকে ৬৭ শতাংশ পর্যন্ত। জটিল এই রোগের ঝুঁকির হাত থেকে বাঁচতে কফি খান নিয়মিত। হতাশা কমিয়ে প্রশান্তি আনে: মানসিক চাপে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন অনেকেই। কি করবেন বুঝতে পারেন না। তখন এক কাপ কফি মানসিক ও শারীরিক প্রশান্তি এনে দেবে। ফলে চাপের কারণে যেসব রোগ দানা বাঁধে শরীরে সেগুলো প্রতিরোধে সাহায্য করে কফি।

আরও পড়ুন- পাতিলেবুর কয়েকটি আশ্চর্য ব্যবহার, যা অনেকেই জানেন না

রান্নাঘরে শুধু রান্নাই নয়, আরও হাজার রকমের কাজ থাকে! যাঁরা নিয়মিত রান্নাঘরের দায়িত্ব সামলান একমাত্র তাঁরাই জানেন রান্না করা ছাড়াও আরও কত রকমের টুকুটাকি কাজ থাকে বাড়ির ওই এক চিলতে জায়গায়। যেমন, রান্নাঘর নিয়মিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাটাও একটা অত্যন্ত জরুরি কাজ। কারণ, রান্নাঘর অপরিচ্ছন্ন থাকলে তার থেকে রোগ-জীবানু ছড়াতে পারে খাবার-দাবারেও। রান্নাঘর পরিষ্কার রাখতে বাজার চলতি নানা রকম সামগ্রী আমরা ব্যবহার করে থাকি।

কিন্তু এ কথা হয়তো আমরা অনেকেই জানি না যে, প্রায় সব রান্নাঘরেই থাকে এমন একটি জিনিস যা রান্নাঘর পরিচ্ছন্ন রাখতে অত্যন্ত কার্যকর! বুঝতে পারছেন না? উত্তরটা হল পাতিলেবু। আসুন রান্নাঘর পরিচ্ছন্ন রাখতে পাতিলেবুর কয়েকটি আশ্চর্য ব্যবহার সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক… ১) বাসনপত্র চকচকে রাখতে পাতিলেবু অপরিহার্য। বিশেষ করে তামা বা রূপোর বাসন চকচকে করতে পাতিলেবু অত্যন্ত কার্যকর! বাসনে সারা রাত লেবুর রস মাখিয়ে রাখে দিন। পরদিন সকালে ধুয়ে ফেলুন। দেখবেন বাসনপত্র নতুনের মতো চকচক করছে!

২) শাক-সবজি কাটার পর কাটার বোর্ড বা চপিং বোর্ড সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাটা খুব জরুরি। চপিং বোর্ড বা কাটিং বোর্ডের উপরে পাতিলেবুর রস ছড়িয়ে একটা কাপড় দিয়ে কিছু ক্ষণ ঘষে বোর্ডে লেগে থাকা দাগ যতটা সম্ভব তুলে ফেলুন। ১০ মিনিট পর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ব্যস, পেয়ে যান জীবানু মুক্ত চপিং বোর্ড।

৩) চাল সিদ্ধ হওয়ার আগে ফুটন্ত জলে ১ চামচ পাতিলেবুর রস মিশিয়ে দিন। এতে ভাত হবে ঝরঝরে। ৪) ফ্রিজের দুর্গন্ধ দূর করতে কয়েক টুকরো পাতিলেবু ফ্রিজের ভিতরে রেখে দিন। দুর্গন্ধ দূর হবে সহজেই। ৫) আদা বা রসুন কাটার পর হাতে দুর্গন্ধ হয়। এই গন্ধ সহজে যেতে চায় না। তবে এই দুর্গন্ধ সহজেই কাটাতে পারে পাতিলেবু। ১ কাপ জলে একটা গোটা পাতিলেবুর রস মিশিয়ে নিয়ে সেই জল দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। ফল পাবেন হাতেনাতে।

৬) মাইক্রোওয়েভের ভিতরের চটচটে ভাব কাটাতে অত্যন্ত কার্যকর! ২ কাপ জলে ২-৩ চামচ পাতিলেবুর রস মেশিয়ে একটি পাত্রে করে মাইক্রোওয়েভের ভিতরে রেখে ৫ মিনিটের জন্য মাইক্রোওয়েভ চালিয়ে দিন। ৫ মিনিট পর পাত্রটি বের করে নিয়ে মাইক্রোওয়েভের ভিতরের দেওয়াল একটা পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন। দেখবেন মাইক্রোওয়েভের ভিতরের চটচটে ভাব আর নেই! তথ্যসূত্র : জি নিউজ