Home / জানা অজানা / ১০ টা মেয়েকে চাকরি না দিয়ে ১০ জন পুরুষকে চাকরি দিন। এতে করে যা যা উপকার হবে।

১০ টা মেয়েকে চাকরি না দিয়ে ১০ জন পুরুষকে চাকরি দিন। এতে করে যা যা উপকার হবে।

১০ টা মেয়েকে চাকরি না দিয়ে ১০ জন পুরুষকে চাকরি দিন।
এতে
১০ টা বেকার কমবে।
১০ জন নারী কর্মজীবি স্বামী পাবে।
১০ টা নতুন সংসার তৈরি হবে।
১০ নারী তার সন্তানদেরকে সঠিক ভাবে টেক কেয়ার করতে পারবে।
১০ টা পরিবারে সচ্ছলতা আসবে।
১০ জন পুরুষ নিজের পায়ে দাঁড়াবে।
১০ টা স্ত্রী তার স্বামীর আদেশ মেনে চলবে, এতে করে পারিবারিক শান্তি আসবে। এবং বেতনের টাকা খরচ হবে পরিবার কেন্দ্রিক।

আর ১০ টা নারীকে চাকরী দিলেঃ
পুরুষের ১০ টা স্থান পুরণ হয়ে যাবে নারী দ্বারা।
১০ টা বেকার পুরুষ বেড়ে যাবে।
১০ টা সন্তান যথাযথ মায়ের আদর যত্ন থেকে বঞ্চিত হবে।
১০ টা যৌথ পরিবার বিচ্ছিন্ন হবে।
বেতনের টাকা খরচ হবে ব্যক্তি কেন্দ্রিক।
এ জন্য আরো ১০ জন নারী এ সকল পুরুষকে বিবাহ করতে পারছে না বলে সামাজিক বন্ধনে বিচ্ছিন্ন আসবে।
১০ জন চাকুরীজীবী মেয়েকে বিবাহ করার জন্য আরো উচ্চ পর্যায়ের ১০ টা যোগ্য কর্মজীবী পুরুষের প্রয়োজন হবে।
তাছাড়া নারীর ক্ষমতায়ন বহিপ্রকাশ, চাকরি জীবীকা নারী ডিভোর্স কে ভয় পান না। সুন্দরী হলে তো কথাই নেই!

এছাড়া ইসলামের মৌলিক নীতি থেকে দূরে থাকার কারণে বা ইসলামী চিন্তাধারা থেকে সচেতনতা থেকে দূরে থাকার কারণে এই সমস্যা হচ্ছে। নারী যতই স্বাধীনতা পাবে ততই এই সমস্যা বাড়বে! পশ্চিমা বিশ্বও একসময় রক্ষণশীল ছিল l তখন সেখানে ডিভোর্স তেমন হতোনা l কিন্তু যখন নারীরা সাবলম্বী হতে শুরু করলো ডিভোর্সের মাত্রা বেড়ে গেল l এখন তো সেখানে বিয়ে করার আগে দশ বার ভাবতে হয় l বাংলাদেশেও এর হাওয়া লাগছে, লাগবে l এটা ইতিবাচক নাকি নেতিবাচক সেটা বিতর্কের বিষয় l কিন্তু এটাই বাস্তব l নারীরা প্রথা গত মায়ের বা স্ত্রীর ভূমিকায় থাকতে রাজি নয় l স্বামীকে কর্তা নয় বন্ধু হিসেবে পেতে চায় l সন্তানের পেছনে খেটে নিজের চাওয়া পাওয়া বিসর্জন দিতে রাজি নয় l ডিভোর্সের সংখ্যা সামনে আরো বাড়বে l
এ ছাড়াও মহিলাদের পর্দার আড়ালে থাকাই উত্তম এবং এটাই তাদের জন্য নিরাপদ স্থান। মহান আল্লাহ বলেন;
وَقَرْنَ فِي بُيُوتِكُنَّ وَلا تَبَرَّجْنَ تَبَرُّجَ الْجَاهِلِيَّةِ الأولَى
আর তোমরা নিজ ঘরে অবস্থান করবে, প্রাচীন জাহেলী যুগের প্রদর্শনীর মত নিজেদেরকে প্রদর্শন করে বেড়াবে না। (আল-আহ্‌যাব: ৩৩/৩৩)