Home / লাইফ স্টাইল / প্রতিদিন আপনার ত্বকের ক্ষতি করছে এমন কিছু বিষয় জেনে রাখুন!

প্রতিদিন আপনার ত্বকের ক্ষতি করছে এমন কিছু বিষয় জেনে রাখুন!

ত্বকের জন্য ভালো এমন খাবারের কথা আমরা অনেকেই শুনেছি। কিন্তু এমন অনেক খাবার আছে যেগুলো উল্টো আপনার ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। অস্বাস্থ্যকর খাবার থেকে হজমের সমস্যা, প্রদাহ, অতিরিক্ত টক্সিনের সমস্যা ইত্যাদি তৈরি হতে পারে। কোলাজেন নষ্ট হয়ে ত্বকে ফুসকুড়ি ও বলিরেখাও পড়তে পারে। টিএনএন এক প্রতিবেদনে এ সম্পর্কে জানিয়েছে।

প্রক্রিয়াজাত মিষ্টি খাবার: ছোটবেলায় চকলেট, ক্যান্ডি খেতে কতই না মজা লাগত! কিন্তু বড় হয়ে তো অনেক অভ্যাসই আমাদের বাদ দিতে হয়। বড়রাও যদি নিয়মিত ক্যান্ডিতে অভ্যস্ত থাকেন তাহলে শরীরে প্রক্রিয়াজাত চিনির মারাত্মক চাপ পড়বে। প্রক্রিয়াজাত চিনি ত্বকের জন্য এক বড় সমস্যা। অতিরিক্ত চিনির কারণে কোলাজেন নষ্ট হয়ে ত্বকের স্থিতিস্থাপকতা হারিয়ে যেতে পারে।

 

ভাজাপোড়া খাবারদাবার: ফ্রাইড স্ন্যাকস বা ভাজাপোড়া খাবার যাই বলেন না কেন, এসব খাবারের আসক্তিটা আপনাকে ছাড়তেই হবে। এসব খাবারে থাকা প্রক্রিয়াজাত কার্বোহাইড্রেট দীর্ঘ মেয়াদে শরীরের জন্য খুবই খারাপ। অতিরিক্ত ভাজাপোড়া খাবারে আপনার ত্বকে ব্রণ বা ফুসকুড়ি পড়ার মতো সমস্যা তৈরি হতে পারে।

 

সোডা জাতীয় পানীয়: সোডা বা নানা ধরনের কোমল পানীয় পানে অনেকেরই অভ্যস্ততা আছে। কিন্তু এ জাতীয় পানীয় ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। এসব পানীয়ে থাকা অতিরিক্ত মাত্রার প্রক্রিয়াজাত চিনি অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে আপনার ত্বকের ওপর মারাত্মক প্রভাব ফেলবে। অল্প বয়সে বুড়িয়ে যাওয়া ত্বক না চাইলে সোডা জাতীয় পানীয়ের অভ্যাস ছাড়ুন।

 

জাঙ্ক ফুড: কারণ নিশ্চয়ই আছে, নইলে খাবারকে ‘জাঙ্ক ফুড’ বলা হবে কেন। অতিরিক্ত মাত্রার স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়িয়ে দেওয়ার মতো নানা উপাদানে ঠাসা থাকে এসব খাবার। খেতে যত মজাই হোক আপনার ত্বকে স্বাস্থ্যের জন্য এগুলো খুবই ক্ষতিকর। জাঙ্ক ফুডের বদলে ফল-মূল-শাক-সবজি-দুগ্ধজাত খাবারদাবারের প্রতি মনোযোগ বাড়ান।

ক্যাফেইন আসক্তি: ক্যাফেইনে আসক্তি আছে অনেকেরই। এক কাপ কফিতে চাঙা হয়ে ওঠাটা অনেক সময়ই দারুণ ব্যাপার। কিন্তু এই আসক্তিতে মজে গিয়ে একের পর এক কফি পান করতে থাকা কিন্তু ভয়ংকর ব্যাপার। ক্যাফেইন আপনার ত্বককে শুষ্ক করে দেয়। অতিরিক্ত কফি নির্ভরতায় ত্বক শুকনো খটখটে হয়ে যেতে পারে। ফলে ত্বকের ভালো চাইলে এ আসক্তি কমান।

 

ত্বকের ক্ষতি করে যে অভ্যাস: সুন্দর ত্বক সবারই ভালো লাগে। তবে আমরা না জেনে অনেক সময় এমন কাজ করি, যেগুলো ত্বকের ক্ষতি করে। ত্বকের ক্ষতি করে এমন কিছু বিষয়ের কথা জানিয়েছে জীবনধারা বিষয়ক ওয়েবসাইট বোল্ডস্কাই।

১. মেকআপ না তুলে ঘুমিয়ে পড়া: সৌন্দর্য বাড়াতে আমরা মেকআপ ব্যবহার করি। তবে মেকআপ ত্বকের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে, যদি সেটা না পরিষ্কার করেই ঘুমিয়ে পড়ি। মেকআপ না পরিষ্কার করে ঘুমিয়ে পড়া ব্রণের মতো বাজে সমস্যা তৈরি করতে পারে। তাই বাইরে থেকে ঘরে ফিরে অবশ্যই মুখ পরিষ্কার করুন।

 

২. খুব গরম পানিতে গোসল: খুব বেশি গরম পানিতে গোসল না করার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। এতে ত্বকের পোরগুলো খুলে যায়; ত্বক বেশি শুষ্ক হয়ে পড়ে।

 

৩. ময়লা বালিশের কভার: জানেন কি ময়লা বালিশের কভারও ত্বকের ক্ষতি করে? ময়লা কভার ত্বকের সংস্পর্শে এসে ইরিটেশন তৈরি করে। প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার বালিশের কভার বদলানো উচিত। এটিও ত্বক ভালো রাখার ছোট একটি উপায়।

যেভাবে আপনার ত্বকের ক্ষতি করছে স্মার্টফোন: বলা হয়, পাবলিক টয়লেটের চেয়েও ১০ গুণ বেশি জীবাণু থাকে একটি স্মার্টফোনে। আর ফোনে কথা বলার সময়ে তা আমাদের গালে লেগে যায়। এর থেকে খুব সহজেই ব্রণের উপদ্রব হতে পারে। অন্যদিকে এটাও বলা হয়, ফোনের নীল আলো ত্বকের বয়স বাড়িয়ে দিতে পারে।  নিউ ইয়র্কের ডার্মাটোলজিস্ট ড. এস্টে উইলিয়ামস সংবাদমাধ্যম হাফিংটন পোস্টকে জানিয়েছেন, ফোনের সাথে লেগে থাকা জীবাণু অতটা ক্ষতি না করলেও, তার সাথে ঘাম, তেল, মেকআপ এবং ধুলোবালি মিলে রোমকূপ বন্ধ করে দিতে পারে। এ থেকে ব্রণের প্রকোপ বাড়ে। এ কারণে ফোন পরিষ্কার রাখা জরুরি। কোনো রোগীর মুখের এক দিকের গালে যদি বেশি ব্রণ থাকে, তাহলে ডার্মাটোলজিস্টরা প্রথমেই তার ফোনে কথা বলার অভ্যাস নিয়ে প্রশ্ন করেন। সাধারণত যেদিকের গালে ফোন ধরে রাখা হয় সেদিকেও ব্রণ বেশি দেখা যায়। এসব ক্ষেত্রে ডার্মাটোলজিস্টরা নিয়মিত ফোন পরিষ্কার করার উপদেশ দেন।

 

রাবিং অ্যালকোহল দিয়ে ফোন পরিষ্কার করলে তা থেকে জীবাণু, তেল, ময়লা সবই চলে যায়। এর পাশাপাশি ‘ফোনসোপ’ নামের একধরনের যন্ত্র আছে যা অতিবেগুনি রশ্মির সাহায্যে ফোন জীবাণুমুক্ত করে।

 

যাদের ত্বকে ইতোমধ্যেই ব্রণের উপদ্রব বেশি, তাদেরকে যথাযথ উপাদান ব্যবহার করে ত্বক পরিষ্কার করার পরামর্শ দেন নিউ ইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হসপিটালের ডার্মাটোলজিস্ট ড. জশুয়া জিকনার। তিনি জানান, কান ও গালের সঙ্গে ফোন না লাগিয়ে ব্লুটুথ ইয়ারপিসের সঙ্গে কথা বলাটা এ ক্ষেত্রে ব্রণ কমাতে কার্যকর হতে পারে। শুধু ত্বকের ক্ষতি নয়, স্মার্টফোন থেকে আসা নীল আলো বয়স বাড়িয়ে দেওয়ার পেছনেও দায়ী। ২০১৩ সালের এক গবেষণা বলে, স্মার্টফোন, ট্যাব বা ল্যাপটপ থেকে আসা এই নীল আলো সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মির মতোই ত্বকের ক্ষতি করতে সক্ষম। তবে এই আলোতে বড় ধরনের ক্ষতি (যেমন ক্যান্সার) হয় এমন কোনো প্রমাণ নেই।

যেসব সৌন্দর্য পণ্যে ত্বকের ক্ষতি: ঠোঁটে লিপস্টিক লাগানোর সময় যদি আপনি মনে করেন, একটু বেশি করে লাগালে আপনাকে আরও ভালো লাগবে তাহলে ভুল ভাবছেন। তবে এটা ঠিক, লাল রং আপনার ঠোঁটকে আরও বেশি আকর্ষণীয় ও নমনীয় করে তোলে। কিন্তু এতে আপনার ঠোঁটের ক্ষতিও হয়। শুধু লিপস্টিক নয়, এরকম আরও অনেক সৌন্দর্য পণ্য আছে যেগুলোর অতিরিক্ত ব্যবহারে আপনার ত্বকের ক্ষতি হয়। তাই ক্ষতি এড়াতে এসব সামগ্রী প্রতিদিন ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা।

 

গবেষকরা বলেন, বাজারে নিজেদের আধিপত্য ধরে রাখতে সৌন্দর্য পণ্য প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলো অনিয়ন্ত্রিত এবং কৃত্রিম উপায়ে যেসব সৌন্দর্য পণ্য তৈরি করে তা ত্বকের অনেক ক্ষতি করে। পণ্যের মানহীনতা এবং তাদের দায়িত্বহীনতার কারণেই মূলত এমনটি হয়ে থাকে। তাই সৌন্দর্য পণ্যগুলোর অতিরিক্ত ব্যবহার ত্বকের অনেক ক্ষতি করে। এক্ষেত্রে ত্বকের ক্ষতি এড়াতে গবেষকরা সৌন্দর্য পণ্যের একটি তালিকা তৈরি করেছেন যেগুলো সারা বছর বা সবসময় ব্যবহার না করাই ভালো। তবে ভিন্ন ভিন্ন মৌসুমে এগুলো ব্যবহার করলে কোন সমস্যা নেই।