রক্তচাপ কমাতে যেভাবে পান করবেন তুলসি চা

হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ তাকেই বলে, যখন আপনার রক্তচাপ নিয়মিত ১৩০/১০০ এর বেশি থাকে। উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসা না করলে হৃদযন্ত্রের স্থায়ী ক্ষতি হতে পারে। এমনকি স্ট্রোকও হতে পারে। উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের খাদ্যভ্যাস স্বাস্থ্যকর রাখতে বলা হয়। উচ্চমাত্রায় সোডিয়ামযুক্ত খাবার বা তেলে ভাজা খাবার খেতে মানা করা হয়। তবে কিছু কিছু খাবার ও পানীয় উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও কাজে আসে। এমন একটি খাদ্য উপাদান হলো তুলসি।

তুলসির স্বাস্থ্য উপকারিতা আমাদের অজানা নয়। সর্দি-কাশি কমাতে অহরহই তুলসি খাওয়া হয়। কিন্তু উচ্চ রক্তচাপ কমাতেও তা কাজে আসে। তুলসির উপকারিতাগুলো হলো-

১) তুলসিতে থাকা এসেনশিয়াল অয়েলগুলো আমাদের শ্বসনতন্ত্রকে সুস্থ রাখে। ঠাণ্ডা-জ্বরের প্রকোপ কমায়।

২) তুলসির আছে অ্যান্টিবায়োটিক, অ্যান্টিভাইরাল, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল ও অ্যান্টিকার্সিনোজেনিক (ক্যান্সাররোধী) বৈশিষ্ট্য।

৩) শরীরে স্ট্রেস হরমোন কর্টিসলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে তুলসি।

৪) ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস রোগীদের উপকারে আসে।

৫) তুলসিতে থাকা ভোলাটাইল অয়েল উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আনে।

বিশেষজ্ঞরা জানান, তুলসিতে থাকা ইউজেনল নামের একটি রাসায়নিক আছে যা রক্তনালিকাগুলোকে সংকুচিত করে এমন পদার্থকে বাঁধা দেয়। ফলে রক্তের সরবরাহ হয় সহজেই।

স্টাডিজ অব এথনো মেডিসিন জার্নাল অনুযায়ী, নীম ও তুলসি দুটো একসাথে খাওয়া হলে রক্তচাপ কমে আসে।

তুলসি চা তৈরির নিয়ম

এক কাপ পানিতে কয়েকটি তুলসি পাতা দিয়ে ফুটিয়ে নিন। এরপর ৩ মিনিট হালকা আঁচে রাখুন। একটি কাপে ছেঁকে নিন। এভাবেই পান করতে পারেন। অথবা এতে এক চা চামচ মধু ও আধা চা চামচ লেবুর রস যোগ করতে পারেন। ফুটিয়ে নেওয়ার সময়ে এতে দারুচিনি বা আদাও যোগ করতে পারেন।

সূত্র: এনডিটিভি