Home / লাইফ স্টাইল / যেসব খাবারে আমৃত্যু ভালো থাকবে চোখ

যেসব খাবারে আমৃত্যু ভালো থাকবে চোখ

আমাদের ঘরেই রয়েছে এমন কয়েকটি খাবার, যা চোখের জন্য খুবই উপকারী। এ ধরণের ৬টি খাবারে অভ্যস্থ হয়ে পড়লে আমৃত্যু ভালো থাকবে আমাদের চোখ।

যেমন— মাছ; চোখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে এমন খাবারের মধ্যে সর্বোত্কৃষ্ট। মাছে রয়েছে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। এ স্বাস্থ্যকর ফ্যাট দৃষ্টিশক্তি ও রেটিনার স্বাস্থ্য উন্নত করে। পাশাপাশি চোখের শুষ্কতা কমাতেও রাখে ভূমিকা। তাই সপ্তাহে তিনদিন খাদ্যতালিকায় মাছ রাখা যেতেই পারে। গ্রিল করে বা কম মসলায় ঝোল করে রান্না করা যেতে পারে মাছ। রান্নায় যোগ করতে হবে লেবুর রস, লবণ, গোলমরিচ ও সবজি।

চোখের জন্য উপকারী খাবারগুলোর মধ্যে ডিম অন্যতম। ডিমের কুসুমে রয়েছে ভিটামিন ‘এ’, লিউটেইন, জিজানথিন ও জিংক, যা চোখের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়। ভিটামিন ‘এ’ কর্নিয়াকে সুরক্ষিত রাখে। অন্যদিকে লিউটেইন ও জিজানথিন বয়সজনিত কারণে দৃষ্টিহীনতা কমাতে সহায়তা করে। আবার জিংক রেটিনার সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়ক ভূমিকা রাখে। তাই রোজ একটি করে ডিম রাখুন খাদ্যতালিকায়। শুধু ডিম খেতে ইচ্ছা না হলে সালাদ বা স্যান্ডউইচে তা ব্যবহার করুন।

ডিমের কুসুমের মতোই গাজরে রয়েছে ভিটামিন ‘এ’ এবং বিটা ক্যারোটিন। চোখের ইনফেকশন প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে ভিটামিন ‘এ’ এবং বিটা ক্যারোটিন।

বাদামও চোখের জন্য উপকারী একটি খাবার। আমন্ডে রয়েছে ভিটামিন ‘ই’। প্রতিদিন ভিটামিন ‘ই’-সমৃদ্ধ আমন্ড খেলে চোখে ঝাপসা দেখা ও দৃষ্টিহীনতার আশঙ্কা এড়ানো যায়। প্রতিদিন একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির ১৫ মিলিগ্রাম ভিটামিন ‘ই’ গ্রহণ করা প্রয়োজন। আর ২৩টি আমন্ড বাদামে রয়েছে এ পরিমাণ ভিটামিন ‘ই’। আমন্ড ছাড়াও সূর্যমুখীর বীজ ও চীনাবাদামে রয়েছে ভিটামিন ‘ই’। ব্রেকফাস্ট সিরিয়ালের সঙ্গে বা বিকালের স্ন্যাকস হিসেবে আমন্ড বাদাম রাখা যেতে পারে।

দুধ ও দুগ্ধজাত খাবারে রয়েছে ভিটামিন ‘এ’ ও জিংক। ভিটামিন ‘এ’ কর্নিয়াকে সুরক্ষিত রাখে। আমাদের চোখের সর্বত্র রয়েছে জিংক, বিশেষত রেটিনায়। গুরুত্বপূর্ণ এ খনিজ রাতে ভালোভাবে দেখতে সহায়তা করে।

কমলাসহ অন্যান্য সাইট্রাস ফলে রয়েছে ভিটামিন ‘সি’, যা চোখের সুস্বাস্থ্যের জন্য জরুরি। তাজা ফল ও সবজিতে রয়েছে এই ভিটামিন, যা চোখের মধ্যকার রক্ত ধমনীর সুস্থতা ধরে রাখে। বয়সজনিত কারণে চোখের অসুবিধাগুলো কমাতে খুবই জরুরি খাদ্যতালিকায় পর্যাপ্ত ভিটামিন ‘সি’ রাখা।

আগেই বলা হয়েছে, চোখের সুস্থতা ধরে রাখতে হলে সুষম খাদ্যাভ্যাসের দিকে নজর দিতে হবে। তবে মেনে চলতে হবে আরো কিছু নিয়ম। সেগুলো হলো— দুই বছর অন্তর চোখের ডাক্তার দেখাতে হবে। রোদে বাইরে গেলে সানগ্লাস পরা জরুরি। ধূমপান বর্জন করতে হবে। সঠিক ওজন ধরে রাখা, খেলাধুলা, সাইক্লিং ও কম্পিউটারে বসে কাজ করার সময় আই গিয়ার ব্যবহার করতে হবে।

আরও কিছু ভিডিও পোস্ট

স্ত্রীকে খুশি করার সহজ কিছু উপায় জেনে নিন, সারাজীবন কাজে লাগবে

আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা যেভাবে ফিরিয়ে আনবেন ভাতের ফ্যান দিয়ে..

২ চামচ পেঁপের বীজের সঙ্গে এক চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে খেয়েছেন কখনো?

ভায়াগ্রা নয় গোপন দুর্বলতায় খান কালোজিরা, জেনেনিন কিভাবে খাবেন…

মধুর সঙ্গে আমলকির রস মিশিয়ে খেলে কি হয়? জানলে এখন ই খাবেন…

মেথি ব্যবহার করে সহজেই ওজন কমানোর দারুণ ৫টি কৌশল শিখে নিন,

বিনা পয়সার যে খাবারটি যৌ’বন ধরে রাখে ও নতুন চুল গজায়ঃ দেখে নিন কিভাবে খাবেন…